লঙ্কার প্রতিশোধের সেমিফাইনাল

এপ্রিল ২, ২০১৪ ৪:৩৩ অপরাহ্ণ

টি২০ বিশ্বকাপের পর্দা নামার সময় ঘনিয়ে এলো। মিরপুর আর চট্টগ্রাম মিলিয়ে সুপার টেনের ৩২টি ম্যাচ শেষ। এবার বৃহস্পতিবার ১ম সেমি আর পর দিন শুক্রবার দ্বিতীয় সেমি। ৬ মার্চ ফাইনাল দিয়ে যবনিকা ঘটবে সংক্ষিপ্ত বিশ্বকাপের ৫ম আসরের। যেকোনো বিশ্বকাপের ফাইনাল মানেই অন্য রকম উত্তেজনা। কিন্তু টি২০ বিশ্বকাপের ফাইনালের আগেই বিশ্ব ক্রিকেট সেমিফাইনালে দেখবে অন্য রকম এক ম্যাচ। যেখানে থাকবে প্রতিশোধের জ্বালা। আর শিরোপা ধরে রাখার লড়াই। কারন প্রথম সেমি ফাইনালে যে প্রতিপক্ষ ২০১২ টি২০ বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলা শ্রীলঙ্কা আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বিশ্বকাপের ফাইনালের আগেই ফাইনালের স্বাদ পাবে ক্রিকেট বিশ্ব। মজার বিষয়, এই দুই দলের আগের ৫টি টি২০ মোলাবাতই হয়েছে টি২০ বিশ্বকাপে। এবার নিয়ে ৬ বার। সেটাও বিশ্বকাপেই।

বুকে কষ্টের কাটা গেঁথে থাকার মর্ম বাংলাদেশ জানে। ২০১২ সালের এশিয়া কাপের ফাইনালে নিজ মাটিতে ২ রানের ব্যবধানে পাকিস্তানের বিপক্ষে হেরে ছিল বাংলাদেশ। সেই জ্বালা যেমন কোনোদিন মিটবে না, তেমনি ২০১২ সালে শ্রীলঙ্কার নিজ মাটি কলম্বোতে টি২০-র ৪র্থ আসরের ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হেরেছে ছিল ৩৬ রানে। সেই জ্বালায় জ্বলছে লঙ্কানরা।

দুই বছরের ব্যবধানে প্রতিশোধ নেবার সুযোগ এসেছে। হেলায় ছেড়ে দিতে চাইবে না দুর্দান্ত ফর্মে থাকা লঙ্কান দল। তাই বলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কী ফেলে দেবার পাত্র! প্রশ্নই উঠে না। ‘লাখে একটা’- বলে যে প্রবাদ বাক্য আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বেলায় সেটাই প্রযোজ্য। ২০১৪ সালের আগে দুই দল টি২০ ম্যাচে পাঁচ বার মুখোমুখি হয়েছে। ২০০৯ সালের টি২০ বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে ১৫ রানে লঙ্কা জয় পায়। । তাতে ২০০৯ সালের টি২০ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে শ্রীলঙ্কা ৫৭ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে ফাইনালে টিকিট কেটে ছিল। ২০১০ টি২০ বিশ্বকাপেও লঙ্কা ৫৭ রানে জয় পায়। আর ২০১২ সালে গ্রুপ ম্যাচে ৯ উইকেটে জিতেছিল লঙ্কা। টানা প্রথম চার ম্যাচে জিতেছে শ্রীলঙ্কা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সেই প্রতিশোধ নিয়েছে তিন বছর পর। একটাই আঘাত করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেটা ‘লাখে একটা’। ২০১২ টি২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে। যা ছিল দুই দলের ৫ম সাক্ষাত। এক বারই জিতেছে তাও কি-না ফাইনালে।

এখন প্রশ্ন ২০০৯ সালের বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের পুনরাবৃত্তি কি আবার ঘটবে! আর শ্রীলঙ্কা কি ২০১২ সালের ফাইনালের ৩৬ রানের শোধ নিতে পারবে! তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কতটা শক্তিশালী তা তো গ্রপ পর্বে প্রমানিত। ভারতের বিপক্ষে হার মানা বাদ দিয়ে সুপার ফর্মে আছে বর্তমান টি২০ চ্যাম্পিয়নরা।

দলীয় পরিসংখ্যানে লঙ্কা এগিয়ে। তেমনি দুই দলের ব্যাটসম্যানদের ব্যক্তিগত পরিসংখ্যানেও লঙ্কানরা এগিয়ে। ২০০৯ সালে টি২০ বিশ্বকাপের গ্রুপ ম্যাচে দিলশান করেছেন ৪৭ বলে ৭৪ আর জয়সুরিয়া ৪৭ বলে ৮১। ওই ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রাভো ৩৮ বলে ৫১ রান ছাড়া বলা মতো কিছু নেই। এবং ২০০৯ সালের সেমিফাইনালে দিলশান ৫৭ বলে অপরাচিজত ৯৬ করেন এবং ক্রিস গেইল করেছিলেন ৫০ বলে ৬৩ রান। ২০১০ বিশ্বকাপে জয়সুরিয়া করেছিলেন ৫৬ বলে ৯৮ এবং সাঙ্গাকারা ৪৯ বলে ৬৮। সে ম্যাচে সারোয়ানের ২৮ই ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যক্তিগত সেরা সংগ্রহ। ২০১২ সালের বিশ্বকাপে স্যামুয়েলের ৩৫ বলে ৫০ আর ব্রাভোর ৩৪ বলে ৪০ সেরা। লঙ্কানর জুয়সুরিয়ার ৪৯ বলে ৬৫ আর সাঙ্গাকারার ৩৪ বলে ৩৯ রান। ২০১২-র ফাইনালে স্যামুয়েলসের ৫৬ বলে ৭৮ রানই সেরা। ওই ম্যাচে জয়সুরিয়ার ৩৬ বলে ৩৩, সাঙ্গাকারার ২৬ বলে ২২ আর কুলাসিকারার ১৩ বলে ২৬।

এক নজরে শ্রীলঙ্কা-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৫ মোলাকাত
২০০৯ টি২০ বিশ্বকাপ            – শ্রীলঙ্কা ১৫ রানে জয়ী
২০০৯ টি২০ বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল    – শ্রীলঙ্কা ৫৭ রানে জয়ী
২০১০ টি২০ বিশ্বকাপ            – শ্রীলঙ্কা ৫৭ রানে জয়ী
২০১২ টি২০ বিশ্বকাপ            – শ্রীলঙ্কা ৯ উইকেটে জয়ী
২০১২ টি২০ বিশ্বকাপ ফাইনাল        – ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩৬ রানে জয়ী

Share on Facebook
সম্পাদক মন্ডলীর চেয়ারম্যান ॥ মোঃ দেলোয়ার হুসেন শরীফ, সম্পাদক ॥ আনোয়ার হোসেন
উপজেলা মোড়, টেনিস কোর্ট রোড, ৫৯ মাষ্টার বাড়ি, ঢাকা।
সংবাদঃ ০১৭১১৩২৪৬৬০ বিজ্ঞাপনঃ ০১৯১১২৪৫৬১৬
ই-মেইল ॥ news@playingnews.com
খেলা পাগল মানুষদের কথা চিন্তা করেই দেশী-বিদেশী সকল ...
খেলাধূলার খবর